নরসিংদী জেলার মাধবদী উপজেলার চরদিঘলদীতে শওকত আলী বাহিনীর তান্ডব লীলা

প্রকাশিত: ৫:২২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২০, ২০২১

নরসিংদী প্রতিনিধি
আবারও অশান্ত হয়ে উঠেছে মাধবদী থানার চরদিঘলদী ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে বারবার টেটা যুদ্ধ হয়েছে দুর্গম চরঅঞ্চলে। পুলিশ প্রশাসন জেলা প্রশাসন বিভিন্ন সময় মাননীয় মন্ত্রী , এমপি উপজেলা চেয়ারম্যান এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ একাধিকবার চেষ্টা করেও থামাতে পারেনি এই মরন খেলা টেটা যুদ্ধ ।

চরাঞ্চলের মানুষগুলো যেন যাযাবরের নেয় রক্ত পিচাশ এর মত, একাধিক খুন জখম, গুমসহ, পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন অনেক মানুষ, নারী পুরুষ শিশু বৃদ্ধ,এই টেটা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন, এই ভয়াবহ টেটা যুদ্ধ সংঘটিত হয় এতে প্রায় চেয়ারম্যান আবুল মুনসুরের গ্রুপের ১০/১৫ জন আহত হয়।

অনুমানিক ৫০/৬০ টি বাড়িঘর ভাঙচুর করে প্রায় দুই আড়াই কোটি টাকার মালামালের ক্ষতির অভিযোগ পাওয়া গেছে । শওকত আলী প্রধানের গ্রুপ নিয়ে গেছেন গরু, বাছুর, ছাগল , বিভিন্ন আসবাবপত্র, ফার্নিচার সহ, দামি কাপড় চোপড় ।

ইউনিয়নের বিভিন্ন বাজারের চেয়ারম্যান সমর্থিত লোকজনের দোকান থেকে মালামাল লুট করে নিয়ে যায় ,অনুসন্ধানে জানা যায় চরদিঘলদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল মনসুর ও তার ছেলে শামীম, ফারুক, একটি গ্রুপের নেতৃত্ব দিয়ে আসছে,অপর গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী প্রধান মাধবদী থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন শাহিন ।

পূর্ব শত্রুতার জেরদরে শওকত আলী প্রধানের গ্রুপের লোকজন ছুরি , ককটেল এবং বিভিন্ন প্রকার অগ্নি অস্ত্র সংগ্রহ ,করে চেয়ারম্যানের লোকজনের উপর হামলা করবে এই খবর এলাকায় ছড়িয়ে পরলে সাধারন মানুষের ভিতর আতংক সূষ্টি হয় এবং বাড়ী ঘর ছেড়ে অনেকে চলে যায় এ বিষয়ে শওকত আলী প্রধানের সাথে মুটো ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন দির্ঘদিন যাবত আধিপত্যকে কেন্দ্র করে বারবার এই টেটা যুদ্ধ হয়ে আসছে এই দুই গ্রুপের মাঝে , এতে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম হয় ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান মেম্বার সহ ১০/১৫ জন প্রত্যেকের গায়ে টেটা বৃদ্ধ হয়েছে আহতরা ঢাকা মেডিকেলসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছে । এ ঘটনার খবর পেয়ে এলাকায় পুলিশ উপস্থিত হয়ে এলাকার নিয়ন্ত্রণে আনেন বর্তমানে এলাকা শান্ত রয়েছে ।


সম্পাদক

মোঃ আবুল হাসান মোবাইল নাম্বার 01860003666

বার্তাকক্ষ

মোবাইল নাম্বার 09638870180