বালু উত্তোলনের মহা উৎসব-

প্রকাশিত: ৩:১৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৫, ২০২১

এন এম সরকার-
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার করতোয়া নদীতে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে অবৈধভাবে ব্যাপকভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় করতোয়া নদীর ৩০টি পয়েন্টে বালু ব্যবসায়িরা বালু উত্তোলন করে আসছে। এতে বালু ব্যবসায়ি এবং প্রভাবশালী চক্রটি যেমন বিপুল অর্থ সম্পদের মালিক হচ্ছে।

অপরদিকে ব্যাপক হারে বালু উত্তোলনের ফলে করতোয়া নদীর ভাঙন বৃদ্ধি পাওয়ায় নদী তীরবর্তী বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ, বিভিন্ন স্থাপনা, রাস্তা-ঘাট, ফসলী জমি ও বসতবাড়ি চরম হুমকির মুখে পড়েছে। এছাড়াও কাটাখালী ও বাঙ্গালী নদী থেকেও অবাধে বালু উত্তোলন অব্যাহত রয়েছে।

জানা যায়, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কাটাবাড়ী ইউনিয়নের ফুলাহার থেকে মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের দেওয়ানতলা ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ৩০’কিলোমিটার করতোয়া নদীর বুক জুড়ে বিভিন্ন জায়গায় ড্রেজার মেশিন বসিয়ে নদীর ভূগর্ভ থেকে অবাধে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। এসব বালু উত্তোলন করে নদী পাড়েই ঢিবি দিয়ে মজুত করে রেখে লাখ লাখ টাকার বালুর বেচাকেনা চলছে।ব্যাপক হারে নদী থেকে বালু উত্তোলন করা হলেও সংশ্লিষ্ট জেলা বা উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কার্যকর কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে না। মাঝে মাঝে লোক দেখানো ২-১ টি অভিযান পরিচালনা করা হলেও বালু উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না। বরং সংশ্লিষ্ট পয়েন্টে আবার অবাধে বালু উত্তোলন করা অব্যাহত থাকছে।

সচেতন মহল মনে করছেন এই মহুর্তে বালু উত্তোলন বন্ধ না হলে নদী তীরবর্তী বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ, বিভিন্ন স্থাপনা, রাস্তা-ঘাট, ফসলী জমি ও বসতবাড়ি চরম আরো ব্যাপক হুমকির মুখে পড়বে।


সম্পাদক

মোঃ আবুল হাসান মোবাইল নাম্বার 01860003666

বার্তাকক্ষ

মোবাইল নাম্বার 09638870180