এন এম সরকার-

অভিযোগ উঠার পর আত্মসাতকৃত টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত-

প্রকাশিত: ৭:৪৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২১

গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ভারপ্রাপ্ত আব্দুস ছালাম এর বিরুদ্ধে শিক্ষা বিভাগের বেশ কয়েকটি খাত থেকে ৩০’লক্ষ টাকার অধিক টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ এনে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন পলাশবাড়ী প্রেসক্লাব সহ-সভাপতি ফেরদাউছ মিয়া।

এ অভিযোগের আগে ও পর বিভিন্ন জাতীয়, আঞ্চলিক ও অনলাইন পত্রিকায় ফলাও করে ওই শিক্ষা কর্মকর্তার দুর্নীতি অনিয়মের ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। পরে লিখিত অভিযোগ ও প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে একাধিক তদন্ত কমিটি গঠন করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

এ তদন্ত কাজ চলার আগে ও পরে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ভারপ্রাপ্ত আব্দুস ছালাম অভিযোগ দাখিলের পর অবস্থার বেগতিক দেখে অবশেষে ৯’লক্ষ ৩০’হাজার ২শ’ ৫০’টাকা ট্রেজারী মুলে সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করেও এখনো ভারপ্রাপ্ত উপজেলা শিক্ষা অফিসার হিসাবে পলাশবাড়ী উপজেলায় বহাল তবিয়তে রয়েছেন। শিক্ষা অধিদপ্তরের গঠিত তদন্ত কমিটির নিকট লিখিত বক্তব্যে শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুস ছালাম উল্লেখ করেছেন বিভিন্ন ভাবে তিনি উত্তোলনকৃত ৯’লক্ষ ৩০’হাজার ২শ’ ৫০’টাকা ইতো মধ্যেই সরকারি কোষাগারে ফেরৎ প্রদান করেছেন।

এদিকে দীর্ঘদিন হলো উক্ত ব্যক্তি বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ থাকার পরে ভারপ্রাপ্ত পদে রাখা ও শিক্ষা অফিসার কর্মকর্তা সংকট থাকলেও সংকট নিরসনে কোন পদক্ষেপ গ্রহন না করায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তাদের ভূমিকা নিয়ে জেলাসহ অত্র উপজেলার শিক্ষাবিদ ও সাধারণ মানুষের মাঝে নানা জল্পনা কল্পনা চলমান রয়েছে। তারা মনে করে দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের দূর্নীতি করার সুয়োগ দেন যারা তারা আর যায় হোক দূর্নীতির বাহিরে নয়। উক্ত অভিযোগে অভিযুক্ত কর্মকর্তার উদ্বোর্ধতন কর্তৃপক্ষ জেলা শিক্ষা অফিসের জড়িত অন্যান্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা প্রয়োজন বলেন মনে করেন সচেতন মহল।

অভিযোগকারী পলাশবাড়ী প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি ফেরদাউছ মিয়া বলেন, আত্মসাতকৃত ৩০’লক্ষ টাকার মধ্যে ইতোমধ্যে প্রায় ১০’লক্ষ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান করেছেন শিক্ষা অফিসার আব্দুল ছালাম সাহেব। এতেই প্রতীয়মান হয় যে ওই কর্মকর্তা দুর্নীতিবাজ। তিনি ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা ও শাস্তি মুলক বদলীর দাবি জানান।

নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা যায় পলাশবাড়ী উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুস ছালাম এর বিরুদ্ধে রংপুর বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় থেকে আরো একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

পলাশবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুজ্জামান নয়ন এ বিষয়ে সাংবাদিেদের জানান ইতোমধ্যেই রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় থেকে জেলা প্রশাসক মাধ্যমে উল্লেখিত ঘটনায় তাকে তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে, তিনি শীঘ্রই তদন্ত কাজ শুরু করবেন।


সম্পাদক

নির্বাহী সম্পাদকঃ মাসুদ রানা পলক প্রকাশক মোঃ আবুল হাসান মোবাইল নাম্বার 01860003666

বার্তাকক্ষ

মোবাইল নাম্বার 09638870180