জমি হচ্ছে পুকুর’ পরিবহন ব্যবহার হচ্ছে কাকড়া’ হুমকির মুখে বাধ-

প্রকাশিত: ২:২৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২১

এন এম সরকার-
গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় কৃষি জমির মাটি বিক্রির ফলে জমি হচ্ছে পুকুর, এসব পুকুর খননের ফলে বেশ কিছু কৃষিজমি ও ঘরবাড়ি ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার ১৬’ফেব্রুয়ারি দুপুরে উপজেলার মহদীপুর ইউনিয়নের ছোট ভগবানপুর গ্রামে অবাধে মাটি কাটার চিত্র দেখা যায়।

জানা যায়, ছোট ভগবানপুর গ্রামের ফেরদৌস মিয়ার পরিবার কৃষি জমি থেকে
১২-১৫ ফুট গভির করে পুকুর খননের মাটি অবাধে বিক্রি করছে।এসব মাটি কাঁকড়া গাড়ী দিয়ে বহন করায় ঐ এলাকার বিভিন্ন স্থানে ধ্বসে যাচ্ছে।

এদিকে ২নং হোসেনপুর ইউনিয়নেরও একই অবস্থা, সেকারনেই কদমতলী এলাকা থেকে আমবাগান পর্যন্ত করতোয়া নদীর বাধের বেহাল দশা।এমনকি বাঁধে গভির গর্তে উপনিত হওয়ায় শতশত মানুষের চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে, এছাড়া মাটি খননের কারনে বর্ষা মৌসুমে বাঁধটি ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কাসহ শতাধিক হেক্টর ফসলি জমি ও ঘরবাড়ি হুমকির মুখে পড়তে পারে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

অনুসন্ধানে আরও জানা যায় আমবাগান এলাকার কার্তিক বাবু নামের এক ব্যক্তি দীর্ঘদিন থেকে করতোয়া নদী থেকে মাটি বিক্রি করে আসছে। ঐসব মাটি পরিবহনে তিনি দিন রাত ব্যবহার করছে ইউপি সদস্য শাহারুল মেম্বারের কাকড়া।

হোসেনপুর ইউনিয়নের করতোয়া পাড়ার স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, এভাবে চলতে থাকলে বর্ষাকালে বিলীন হতে পারে ঘরবাড়ি ও আবাদী জমি। সম্ভাব্য এ সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তিনি।


সম্পাদক

মোঃ আবুল হাসান মোবাইল নাম্বার 01860003666

বার্তাকক্ষ

মোবাইল নাম্বার 09638870180