রংপুরে স্কুলছাত্রী গণধর্ষণ: ডিবি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল পিবিআইয়ের

প্রকাশিত: ৬:১৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ৯, ২০২১

ডেস্ক রংপুরের হারাগাছে স্কুলছাত্রী গণধর্ষণের মামলায় রংপুর গোয়েন্দা পুলিশ-ডিবির এ এস আই রাহেনুল ইসলামসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই। তবে অভিযুক্ত রাহেনুলের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের বদলে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৯ মার্চ) দুপুরে গণধর্ষণের ঘটনার ৪ মাস পর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই পরিদর্শক সাইফুল ইসলাম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন এবং মানবপাচার দমন আইনে সংশ্লিষ্ট বিশেষ ট্রাইব্যুনালে এ অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

মামলায় রাহেনুলের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের অভিযোগ না আনার ব্যাখ্যা দেন পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসাইন।

তিনি বলেন, বিজ্ঞ আদালতে ৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র জমা দেয়া হয়েছে। রাহেনুলের বিরুদ্ধে আমাদের তদন্তে যেটা এসেছে সেটা হচ্ছে ধর্ষণ এবং তার সাথে সাথে মানবপাচার প্রতিরোধ দমন আইনের ১০ ধারা।

পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে পিবিআইয়ের অভিযোগপত্র দেয়ার ঘটনাকে দৃষ্টান্তমূলক বলে জানান নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিশেষ পিপি জাহাঙ্গীর আলম তুহিন।

অভিযোগপত্রভুক্ত অন্য আসামি হলেন: আবুল কালাম আজাদ, বাবুল হোসেন, সুমাইয়া পারভিন মেঘলা ও সুরভী আক্তার সমাপ্তি।

অভিযোগপত্র বলা হয়, নিজের বিয়ের কথা গোপন করে ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন ডিবি পুলিশের এ এস আই রাহেনুল। ঘটনার দিন গতবছর ১৮ অক্টোবর মোটরসাইকেলে করে বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাঘুরির পর সন্ধ্যা ৭টার দিকে আসামি মেঘলা নামে এক নারীর ভাড়াবাসায় নিয়ে ধর্ষণ করে এবং রাতে নিজেই ওই স্কুলছাত্রীকে তার বাসার কাছে পৌঁছে দেয়। সারাদিন বাইরে থাকায় ওই স্কুলছাত্রীর মা তাকে গালাগালি করায় রাত ১০টার দিকে রাগ করে সে আবার মেঘলার বাসায় চলে যায়। মেঘলা তার বান্ধবী সুরভীকে দিয়ে পরদিন বেলা ১১টার দিকে আসামি আজাদ ও বাবুলকে খবর দিয়ে আনে এবং ৩ হাজার টাকার বিনিময়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে তারা।


সম্পাদক

নির্বাহী সম্পাদকঃ মাসুদ রানা পলক প্রকাশক মোঃ আবুল হাসান মোবাইল নাম্বার 01860003666

বার্তাকক্ষ

মোবাইল নাম্বার 09638870180