গৃহকর্মীকে ধর্ষণ: ধর্ষকের মা গ্রেফতার

ওয়েব ওয়েব

ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:২৯ অপরাহ্ণ, মে ২, ২০২১

চাঁদপুরে টানা এক বছর ধরে এক গৃহকর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক ছাত্রের বিরুদ্ধে।

ধর্ষণের ঘটনায় পারিবারিকভাবে বিচার না পেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় নির্যাতিতা ওই গৃহকর্মী। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ধর্ষকের মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আর পলাতক রয়েছে ধর্ষক ও তার বাবা।

জানা গেছে, বাবা-মায়ের অনুপস্থিতিতে বাসায় একা পেয়ে গৃহকর্মীকে যৌন হয়রানি করতেন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছেলে আমজাদ মাহমুদ নিলয় (২১)। আর এই নিয়ে নির্যাতিতা নিলয়ের মা-বাবাকে অভিযোগ দিলে তার ওপর চলতো অমানুষিক নির্যাতন। ফলে প্রতিকার না পেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন ২৪ বছর রয়সী ওই গৃহকর্মী।

তবে প্রাণে বেঁচে যাওয়ায় পুরো ঘটনা ফাঁস হয়ে যায়। এমন ঘটনার পর অভিযুক্তসহ তার বাবা ও মাকে আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে। এরইমধ্যে পুলিশ ধর্ষকের মাকে গ্রেফতার করতে পারলেও গা ঢাকা দিয়েছে অভিযুক্ত ও তার বাবা।

মামলার অভিযোগে জানা যায়, জেলা শহরের ওয়ারলেস এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজ বরকন্দাজের বাড়িতে ভাড়া থাকেন চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এ কর্মরত আব্দুল মাজেদ ও শাহনাজ বেগম দম্পতি। তাদের বড় ছেলে আমজাদ মাহমুদ নিলয় (২১) রাজধানী ঢাকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন। কিন্তু করোনার কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় এখন বাবা-মায়ের সঙ্গেই থাকছেন তিনি। তাদের বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করেন তরুণী। নিলয়ের বাবা-মা যখন কর্মস্থলে থাকেন, তখন যৌন নির্যাতনের শিকার হতেন ওই গৃহকর্মী।

গত এক বছর ধরে চলে এই নির্যাতন। বিষয়টি নিয়ে নিলয়ের বাবা-মাকে জানিয়েও কোনো প্রতিকার পাননি অসহায় গৃহকর্মী। সবশেষ গত ২৪ এপ্রিল ফের ধর্ষণের শিকার হন তিনি। এবারও জানিয়ে লাভ হয়নি। আবারও অপবাদের মুখে পড়ে মারধরের শিকার হন তিনি। যে কারণে গত ৩০ এপ্রিল বাসা থেকে পালিয়ে সড়কে এসে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন ওই গৃহকর্মী। কিন্তু আশপাশের মানুষ এগিয়ে আসায় এই যাত্রায় রক্ষা পান তিনি।

ঘটনাস্থলটি খুব কাছে হওয়ায় বিষয়টি চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদের নজরে পড়ে। তিনি ওই তরুণীকে উদ্ধার করে সদর মডেল থানা পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রশিদ জানান, এই ঘটনায় গৃহকর্মীর কাছ থেকে বিস্তারিত শুনে ওই পরিবারের তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ করা হয়। পরে শনিবার (১ মে) চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয় নির্যাতিতার। এর আগে মামলার পরিপ্রেক্ষিতে শহরের ওয়ারলেস এলাকার বাসায় অভিযান চালায় পুলিশ। এ সময় নিলয়ের মা শাহনাজ বেগমকে আটক করা হয়। পরে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়। তবে ঘটনার মূল হোতা আমজাদ হোসেন নিলয় ও তার বাবা আব্দুল মাজেদ গা ঢাকা দিয়েছেন। পুলিশ তাদেরও আটকের চেষ্টা করছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চাঁদপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-২ এর মিটার টেস্টিং এবং বিলিং সহকারী পদে কর্মরত আব্দুল মাজেদ ও শাহনাজ বেগম। তাদের বাড়ি ভোলা জেলার দৌলতখান উপজেলার চরশফী গ্রামে।

ঘটনা সম্পর্কে চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদ জানান, গৃহকর্মীকে যৌন নির্যাতনের ঘটনায় জড়িত যেই হোক না কেন তাদের ছাড় দেওয়ার সুযোগ নেই। এই জন্য পুলিশকে কঠোর অবস্থানে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


সম্পাদক

নির্বাহী সম্পাদকঃ মাসুদ রানা পলক প্রকাশক মোঃ আবুল হাসান মোবাইল নাম্বার 01860003666

বার্তাকক্ষ

মোবাইল নাম্বার 09638870180