হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার মাটির ঘর

ঠাকুরগাঁও ২৪ ঠাকুরগাঁও ২৪

নিউজ পেপার ওয়েব ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪:১৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০২১

শিল্প সমৃদ্ধ উপজেলা নরসিংদীর পলাশ। প্রায় ৪০ বছর আগে এ উপজেলার প্রতিটি গ্রামে ছিল অসংখ্য মাটির ঘর। আধুনিকতার স্পর্শ আর কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার সেই ঘর। সেই স্থান দখল করছে ইট-কংক্রিটের দালান।

মাটির ঘর তৈরি করা ছিল খুব সহজ, খরচও অনেক কম। প্রয়োজন হতো না দামি নির্মাণ সামগ্রী কিংবা শ্রমিকের। এটেল বা দোআঁশ মাটি দিয়ে মাত্র কয়েকদিনে পরিবারের সদস্যরাই এ ঘর তৈরি করতে পারতেন। প্রথমে মাটি ঝরঝরে করে নিয়ে পরিমাণ মতো পানি মিশিয়ে কাঁদা বানানো হতো। এরপর অল্প অল্প করে মাটি বসিয়ে ১০-১২ ফুট উচু দেয়াল তৈরি করা হতো। দেয়াল শুকিয়ে গেলে উপরে ব্যবহার করা হতো টিনের চাল।

মাটির ঘরে বসবাসও ছিল আরামদায়ক। শীত কিংবা গরম- সবসময় ঘরের ভেতরের তাপমাত্রা থাকতো সহনীয়। ঝড়, বন্যা, ভূমিকম্পের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগেও এসব ঘর টিকে থাকতো বছরের পর বছর।

এক সময় দরিদ্র কিংবা বিত্তবান- সবার ঘরই ছিল মাটি দিয়ে তৈরি। বর্তমানে বিত্তবানদের স্থান হয়েছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ইট-কংক্রিটের দালানে। আর দরিদ্র্য ঠাঁই নিয়েছে ঝুপড়িতে।

পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রফেসর কামরুল ইসলাম গাজী জানান, আমাদের ইউনিয়নের প্রতিটি বাড়িতে এক সময় মাটির ঘর ছিল। এখন মানুষের আয় আগের চেয়ে বেড়েছে। এ কারণে যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ইট-কংক্রিটের ঘর নির্মাণ করছে। তবে আমাদের অতীত, ইতিহাস ও ঐতিহ্য ধরে রাখতে মাটির ঘরগুলো সংরক্ষণ করা প্রয়োজন।


সম্পাদক

নির্বাহী সম্পাদকঃ মাসুদ রানা পলক প্রকাশক মোঃ আবুল হাসান মোবাইল নাম্বার 01860003666

বার্তাকক্ষ

মোবাইল নাম্বার 09638870180