ঘরে ঘরে বাড়ছে সর্দি জ্বর কাশির প্রকোপ


ঠাকুরগাঁও ২৪ নিউজপেপার ডেস্ক প্রকাশের সময় : জুলাই ১৬, ২০২২, ১২:২৭ অপরাহ্ণ /
ঘরে ঘরে বাড়ছে সর্দি জ্বর কাশির প্রকোপ

বর্ষাকালের তীব্র গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ছে সব বয়সী মানুষ। ঘরে ঘরে বিশেষ করে জ্বর, সর্দি ও কাশির প্রকোপ দেখা দিয়েছে। অধিকাংশ মানুষই পাড়ার দোকান থেকে ওষুধ কিনে সেবন করছে। কেউ কেউ হাসপাতালে যাচ্ছে।

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামের বাসিন্দা আবুল হোসেন জানান, তিনি চার দিন ধরে জ্বর ও সর্দিতে ভুগছেন। চিথলী দক্ষিণপাড়া গ্রামের এক গৃহিণী বলেন, তাঁর দুই বছরের সন্তানের এক সপ্তাহ ধরে জ্বর ও সর্দি। ওষুধেও কাজ হচ্ছে না।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক এম এ হালিম লাবলু জানান, এক ধরনের ভাইরাসের সংক্রমণে লোকজন জ্বর ও সর্দিতে আক্রান্ত হচ্ছেন। বিরূপ আবহাওয়ার কারণে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে। তিনি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার পাশাপাশি মৌসুমি ফলমূল খাওয়ার পরামর্শ দেন।

এক প্রশ্নের জবাবে এই চিকিৎসক জানান, জ্বর ও সর্দি হলেই করোনা হবে, এমন ধারণা সঠিক নয়। তবে জ্বর ও সর্দি বেশি দিন স্থায়ী হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ খেতে হবে। এ ছাড়া তিনি মাস্ক ব্যবহার ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান।

এদিকে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বেশির ভাগ বাড়িতেই কেউ না কেউ জ্বর, কাশিতে আক্রান্ত। তাঁদের অধিকাংশই পাড়ার দোকান থেকে ওষুধ কিনে সেবন করছে। কেউ কেউ আবার সৈয়দপুর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে।

হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, বহির্বিভাগে রোগীর দীর্ঘ লাইন। আন্তবিভাগে শয্যা খালি না থাকায় মেঝেতেই শুয়ে আছে অনেক রোগী।

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মোহাইমিনুল ইসলাম আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘বহির্বিভাগে প্রতিদিন গড়ে ৩০০ রোগী আসছে। এসব রোগীর প্রায় অর্ধেকই সর্দি, কাশি, জ্বরে আক্রান্ত। অনেক রোগীরই ১০৩ থেকে ১০৪ ডিগ্রি জ্বর উঠে যাচ্ছে। কিন্তু সাধারণ ওষুধে তিন-চার দিনে তাঁরা সুস্থ হয়ে উঠছেন।’

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায়ও ঘরে ঘরে জ্বর, সর্দি, কাশিতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এসব রোগ শিশু আর বৃদ্ধদের বেশি হলেও আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা দুলালপুর গ্রামের জেসমিন আক্তার বলেন, তিনি তিন দিন ধরে জ্বর, সর্দি, কাশি ও শরীরে প্রচণ্ড ব্যথায় ভুগছেন। এত দিন দোকান থেকে ওষুধ কিনে খেয়েছেন। এতে কোনো উপকার না পাওয়ায় হাসপাতালে এসেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবু হাসনাত মো. মহিউদ্দিন মুবিন বলেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের ফলে এখন সব বয়সের মানুষ জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছে। অনেকের ভাইরাসজনিত জ্বর হচ্ছে। এই জ্বরের মাত্রা থাকে অনেক বেশি।

subscribers